June 17, 2021, 5:30 pm

creativesoftbd.com

ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতাকে পেটাল ঢাবি সভাপতি

ঢাকাঃ- লিফটে ওঠা নিয়ে কথা কাটাকাটির জেরে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহসভাপতি রুহুল আমিনকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে সংগঠনটির ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সনজিৎ চন্দ্র দাসের বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নতুন ভবনে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রুহুল আমিনের বড়ভাই ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সিনিয়র সহসভাপতি আব্দুর রহিমের শাশুড়ি ঢামেকে মারা গেলে মরদেহ নিতে আসেন রুহুল আমিন, আব্দুর রহিম, তার স্ত্রী ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা রানা।

সেই সময় লিফটে উঠছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিৎ চন্দ্র দাসের বড় ভাই ও ভাবি। তাদের সঙ্গে সনজিতের কয়েকজন অনুসারীও লিফটে ওঠেন। তখন রুহুল আমিন লিফট থেকে সনজিতের অনুসারীদের কয়েকজনকে নেমে তাদেরও ওঠার সুযোগ দেয়ার অনুরোধ করেন।

এ নিয়ে সনজিতের ভাইয়ের সঙ্গে রুহুল আমিনের কথা কাটাকাটি হয়। এর আধা ঘণ্টা পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের বিভিন্ন হলের শতাধিক নেতাকর্মী ঢাকা মেডিকেল কলেজের নতুন ভবনের ৮ তলায় উঠে রুহুল আমিনকে বেধড়ক মারধর শুরু করেন।

মারতে মারতে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা রুহুল আমিনকে ৮ তলা থেকে দ্বিতীয় তলায় নিয়ে আসেন। এ সময় হাসপাতালে আসা রোগী ও দর্শনার্থীরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন।

রাত পৌনে ২টার দিকে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী ঢাকা মেডিকেল কলেজে এলে তার সামনেই রুহুল আমিন বলেন, সনজিৎ আমাকে মারতে মারতে আটতলা থেকে নিচে নিয়ে আসে। সে আমাকে শিবির বলে গালাগালও করেছে। এত বছর ছাত্রলীগ করে যদি এ পুরস্কার পেতে হয়, তা হলে কার জন্য ছাত্রলীগ করলাম, কীসের জন্য ছাত্রলীগ করলাম?

অন্যদিকে সনজিৎ বলেন, তিনি রুহুল আমিনকে মারেননি। তবে তার কর্মীদের সঙ্গে একটু ঝামেলা হয়েছিল শুনে তিনি গিয়ে ঝামেলা মিটিয়ে এসেছেন।

 

creativesoftbd.com

     আজকের খবর বিডি কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

  

জরুরি সেবা ফোন নাম্বার