June 16, 2021, 6:50 pm

creativesoftbd.com

দলীয় সিদ্ধান্ত নির্বাচনে অংশ নেওয়ার, এটা আমরা চাপিয়ে দিতে পারি নাঃ শেখ হাসিনা,

ঢাকা: কোনো রাজনৈতিক দলের নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সিদ্ধান্ত সরকার চাপিয়ে দিতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ‘কোন পার্টি নির্বাচন করবে, কোন পার্টি করবে না, এটা দলীয় সিদ্ধান্ত। এটা আমরা চাপিয়ে দিতে পারি না। নির্বাচন না করলে ধরে নিয়ে যাবো, জেলে পাঠাবো- এটা তো আমরা বলতে পারি না।’

বুধবার (২ মে) বিকালে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন গণভবনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর সৌদি আরব, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়া সফরের বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরতে বুধবার বিকাল ৪টায় এই সংবাদ সম্মেলন শুরু হয়।

খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত না করা হলে বিএনপি নির্বাচনে আসবে না, এ প্রসঙ্গে সরকারের অবস্থান জানতে চাওয়া হয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে। সব দলের অংশগ্রহণে আগামী জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে তাতে আওয়ামী লীগই জয়লাভ করবে কিনা, সে প্রশ্নও করা হয় তাকে।

প্রশ্নের উত্তরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি নির্বাচনে আসবে কি আসবে না, সেটা তাদের সিদ্ধান্ত। তারা ২০১৪ সালের নির্বাচনে অংশ নেয়নি। ওই নির্বাচন ঠেকানোর চেষ্টা করেছে। সারাদেশে জ্বালও-পোড়াও করেছে, মানুষ হত্যা করেছে, পুলিশ হত্যা করেছে। আগামী জাতীয় নির্বাচনেও তারা কী করবে, সেটা তাদের ওপরই নির্ভর করছে। পাশাপাশি, খালেদা জিয়ার সাজাপ্রাপ্ত হয়ে কারাগারে থাকার বিষয়টি আদালতের, সরকারের নয় বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়াকে তো আমি কারাগারে পাঠাইনি। তাকে তো রাজনৈতিকভাবে পাঠানো হয়নি কারাগারে। রাজনৈতিকভাবে তাকে গ্রেপ্তার করতে চাইলে তো আরো আগেই করতে পারতাম। ২০১৪ সালে যেভাবে হুকুম দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করেছিল, তখনই তাকে গ্রেপ্তার করতে পারতাম। কিন্তু রাজনৈতিকভাবে তো তাকে গ্রেপ্তার করতে চাইনি।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলার প্রসঙ্গ টেনে শেখ হাসিনা বলেন, ১০ বছর ধরে একটা মামলা চলছে। ১৫২ বার না ১৫৪ বার তারা কোর্ট বদল করেছে, ২২ বার রিট করেছে। তাদের এত বড় বড় আইনজীবী, এত আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন সব আইনজীবী, তারা কিছুতেই প্রমাণ করতে পারলেন না যে খালেদা জিয়া দুর্নীতি করেনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আদালত রায় দিয়েছে। আইনিভাবে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর বিরুদ্ধে তাদের আইনিভাবেই লড়াই করতে হবে। আমাদের কাছে দাবি করে কী হবে? বরং আমি একটা অন্যায় করেছি। একজন নিরপরাধ মানুষ তার জন্য সাজা খাটছেন। কোনো অপরাধ না করে, কোনো বিচার ছাড়াই উনার মেইড সার্ভেন্ট সাজা খাটছেন। মানবাধিকার সংস্থাগুলো কথায় কথায় সোচ্চার। তারা তো এই বিষয় নিয়ে কিছুই বলছে না।

রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগ সবসময় মানুষের ভোট পেয়ে জয়ী হওয়ার আশা করে বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, রাজনৈতিক দল হিসেবে তো সবসময় চাই, আশাও করি যে মানুষ ভোট দেবে। আর এত উন্নয়নের পরও যদি মানুষ ভোট না দেয়, তাহলে তো উন্নয়নের ধারাবাহিকতা নষ্ট হয়। এর আগে ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত আমরা যে উন্নয়ন করেছি, আমরা ক্ষমতা থেকে চলে যাওয়ার পর সেই ধারাবাহিকতা নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। এখন মানুষ যদি উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে চায়, তাহলে নিশ্চয় তারা আওয়ামী লীগে ভোট দেবেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জনগণ যদি মনে করে যে উন্নয়ন অব্যহত রাখবে, তাহলে তারা আওয়ামী লীগকেই ভোট দেবে। আমরা যে উন্নয়ন পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি, সেগুলো বাস্তবায়ন করতে পারলে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে। বাংলাদেশের এই উন্নয়ন কেবল আওয়ামী লীগের মাধ্যমেই সম্ভব, অন্য কেউ এই উন্নয়ন করতে পারবে না। এর আগে তো জিয়া ক্ষমতায় ছিল, এরশাদ ক্ষমতায় ছিল, তারা তো কোনো উন্নতি করতে পারেনি।’

শেখ হাসিনা আরও বলেন, বড় বড় উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ আমরা শুরু করেছি। আমরা অনেক পদক্ষেপ নিচ্ছি। মাত্র ৯ বছরে যে উন্নয়ন কাজ আমরা করেছি, তার জন্য একটু শোকর করেন, একটু ধন্যবাদ দেন। আমরা যেন ভোট পাই, সেটাও একটু দেখেন।

creativesoftbd.com

     আজকের খবর বিডি কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

  

জরুরি সেবা ফোন নাম্বার