June 21, 2021, 3:24 am

creativesoftbd.com
Rumana-Ahmed

বাবার স্মরণে গাইলেন রুমানা ‘আয় খুকু আয়’

বাবাকে হারিয়েছেন আজ থেকে এগার বছর আগে। পৃথিবীর সকল মায়া ত্যাগ করে প্রায় এক যুগ আগে বাবা যখন পরপারে পাড়ি জমালেন রুমানা আহমেদ তখন কেবলই জাতীয় দলে পা দিয়েছেন (২০০৮ সালে)। ফলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মেয়ের সদর্প পথ চলা দেখে পারেননি বাবা শেখ হাতেম আহমেদ। দেখলে নিশ্চয়ই গর্বে তার বুক ভরে উঠত। সেই দুঃখ প্রতিনিয়তই রুমানাকে তাড়িয়ে বেড়ায়। আন্তর্জাতিক বাবা দিবসে তাই প্রয়াত বাবার স্মরণে হেমন্ত মুখোপাধ্যায় ও শ্রাবন্তী মজুমদারের সেই মনোমুগ্ধকর গানটি গাইলেন বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের ওয়ানডে দলপতি ‍রুমানা আহমেদ।

গানটির মধ্য দিয়ে নিজের ও বিশ্বের সকল বাবার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন রুমানা। দারুণ সুরেলা কণ্ঠে বাবার স্মরণে গাওয়া পুরো গানটির ভিডিও রুমানা আহমেদ নিজের অফিসিয়াল ফেইসবুক পেইজে (Rumana Ahmed) আপলোড করেছেন।

বাবার উৎসাহেই ক্রিকেটে পথচলা রুমানার। ২০০৮ সালে রুমানা যখন জাতীয় দলের আঙিনায় পা দিলেন কী খুশিটা না হয়েছিলেন বাবা হাতেম আহমেদ। সবার কাছে গর্ব করে মেয়েদের কথা বলে বেড়াতেন। বেঁচে থাকলে আজ রুমানার ঝলমলে ক্যারিয়ার দেখে তার চেয়ে বেশি খুশি আর কেউ হত না বলে বিশ্বাস রুমানার।

রোববার (২১ জুন) সারাবাংলার সঙ্গে একান্ত কথোপকথনে একথাগুলোই বললেন নারী ক্রিকেট দলের নন্দিত এই অলরাউন্ডার।

‘২০০৯ সালের জুলাই মাসে বাবা ইন্তেকাল করেছেন। তখন আমি মাত্র জাতীয় দলে ঢুকেছি, ২০০৮ সালে। বাবা যতটুকুই আমার ক্যারিয়ার দেখেছে এতটাই খুশি ছিল যে সবার কাছে আমার গল্প করে বেড়াত। খারাপ লাগে যখন ভাবি বাবা আমার বর্তমান অবস্থাটা দেখে যেতে পারল না। দেখলে নিশ্চয়ই অনেক খুশি হতেন। কেননা ওনার উৎসাহেই আজকের এই আমি।’

creativesoftbd.com

     আজকের খবর বিডি কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

  

জরুরি সেবা ফোন নাম্বার