June 23, 2021, 7:35 pm

creativesoftbd.com
শ্রাবণের বৃষ্টিতে রাজধানীবাসীর ভোগান্তি চরমে

শ্রাবণের বৃষ্টিতে নগরজুড়ে ভোগান্তি

ঢাকা : ঢাকার আবহাওয়া অফিস বলছে, মঙ্গলবার ভোর ৬ থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত রাজধানীতে বৃষ্টি হয়েছে মাত্র ২ মিলিমিটার। তবে তাতেই ডুবসাঁতার শুরু হয়েছে রাজধানীর অনেক এলাকায়। সড়কে জমেছে হাঁটু পানি। ভিজে একাকার নাগরিক জীবন।

বৃষ্টিস্নাত এমন সকাল-দুপুর-রাত আরও অন্তত পাঁচ দিন থাকবে বলে জানাচ্ছে আবহাওয়ার পূর্বাভাস। নগরবাসী পূর্ব অভিজ্ঞতা বলছে, এমনটি চললে এই ডুবসাঁতারে ক্লান্ত হতে হবে তাদের।

টানা খরার পর শ্রাবণের নবম দিনে এসে বর্ষার আসল স্বাদ দিতে শুরু করেছে প্রকৃতি। তবে রাজধানীবাসীর জন্য বর্ষার এমন স্বাদ অনেকটাই তেঁতো। কেননা কর্মচঞ্চল নগরজীবনে বৃষ্টিই বাঁধা হয়ে দাড়ায় অনেকাংশে। তাই তো মঙ্গলবার সকালের বৃষ্টির প্রথম ধাক্কা এসে লাগে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে। ভারি বৃষ্টির কারণে রাজধানীর প্রায় সব বিদ্যালয়েই শিক্ষার্থী উপস্থিতি ছিল অনেক কম।

রাজধানীর বাড্ডা এলাকার নিউ ন্যাশন আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রিন্সিপাল মাহবুবুর রহমান জানান, তার স্কুলের প্রভাতি শাখার প্রায় আড়াইশ শিক্ষার্থীর মধ্যে অন্তত একশ শিক্ষার্থী অনুপস্থিত ছিল। দিবা শাখার অবস্থা আরও খারাপ বলে জানান তিনি।

পানির নিচে রাস্তা ভালো।

 

এদিকে, বৃষ্টির কারণে অফিসগামীদের পড়তে হয়েছে চরম ভোগান্তিতে। অলিগলিতে পানি জমে যাওয়ায় প্রধান সড়ক পর্যন্ত আসতেই ভিজে একাকার হয়েছেন তারা। অনেক ক্ষেত্রে নির্ধারিত সময়ে বাসা থেকে বেরই হতে পারেননি অনেকে। রেকর্ড তাপমাত্রার গরমের পর নগরবাসীর কাছে শ্রাবণের এই বৃষ্টি কাঙ্ক্ষিত হলেও ভোগান্তিতে বিপর্যস্ত হয়েছেন তারা।

বৃষ্টিতে একান্ত প্রয়োজন না হলে ঘর থেকে বের হননি নগরবাসী। যার প্রভাব পড়তে দেখা গেছে রাজধানীর গণপরিবহনেও।

হাতিরঝিলের চক্রাকার বাসের কর্মী হাফিজ শেখ জানান, প্রতিদিন যে পরিমাণ যাত্রী তাদের বাসে কেবল দাঁড়িয়ে যাতায়াত করে, আজ সকাল থেকে সে পরিমাণ যাত্রী তাদের পুরো বাসেই হয়নি। চক্রাকার এ বাসের কাউন্টারগুলোও ফাঁকা দেখা গেছে।

রাজধানীর আবহাওয়া অফিস বলছে, ভোর ৬টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত মাত্র ২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। তবে দেশের অনেক স্থানেই প্রবল বৃষ্টি হয়েছে।

আবহাওয়াবিদ আরিফ হোসেনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত ৬ ঘণ্টায় চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে গড় ‍বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে ১৪২ মিলিমিটার। আর সন্দ্বীপে ৮৫ মিলিমিটার। তবে গত ২৪ ঘণ্টায় সবমিলিয়ে রাজধানীতে ৫৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

গত ২৪ ঘণ্টার বৃষ্টিতে ঢাকার বিভিন্ন সড়কে পানি জমতে দেখা গেছে। মিরপুরের বিভিন্ন সড়ক, বাড্ডা, রামপুরা, খিলগাঁও, শাহজাহানপুর, মতিঝিল, ধানমন্ডি ও মোহাম্মদপুরের অনেক সড়কে পানি জমে গেছে। কোনো কোনো এলাকায় সড়কে নৌকাও চলতে দেখা গেছে। বিশেষ করে রাজধানীর ডেমরা এলাকার অনেক সড়ক কয়েকফুট পানির নিচে রয়েছে। বৃষ্টির কারণে এসব এলাকায় স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যহত হওয়ার পাশাপাশি আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন প্রান্তিক পেশাজীবীরা।

গত কিছুদিনের টানা গরমে কেবল রাজধানীবাসীই পোড়েননি, পুড়েছে পুরো দেশ। তাই চলতি বৃষ্টিতে স্বস্তি নেমেছে দেশজুড়ে। মঙ্গলবার দেশের প্রায় সবগুলো জেলায় কমবেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে। বিশেষ করে ‍উপকূলীয় জেলাগুলোয় হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে। চট্টগ্রামের নিম্নাঞ্চলও এর মধ্যে তলিয়ে গেছে বৃষ্টি আর জোয়ারের পানিতে। যদিও চট্টগ্রাম ও ও মোংলা সমুদ্রবন্দরে এখন পর্যন্ত কোনো বিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়নি।

আবহাওয়াবিদ আরিফ হোসেন জানান, চলমান বৃষ্টিপাত আরও চার থেকে পাঁচ দিন অব্যাহত থাকবে। এ অবস্থায় উপকূলীয় অঞ্চলে ভারি থেকে অতিভারি বৃষ্টিপাতপাত হবে। এ ছাড়া পাহাড়ি এলাকায় ভূমিধসের আশঙ্কার কথাও জানিয়েছেন তিনি।

 

creativesoftbd.com

     আজকের খবর বিডি কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

  

জরুরি সেবা ফোন নাম্বার