June 23, 2021, 11:24 pm

creativesoftbd.com

ঢাবির সূর্যসেন হলে কক্ষ দখলের পরিকল্পনা করছে ছাত্রলীগ, থাকছেন সাবেক নেতারাও

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার’দা সূর্য সেন হলে কক্ষ দখলের পরিকল্পনা করছে হল শাখা ছাত্রলীগ। পরিকল্পনার অংশ হিসেবে প্রত্যেক কক্ষ থেকে তথ্য সংগ্রহ করার জন্য দেয়া হয়েছে প্রিন্ট করা ফরম।

হল সূত্রে জানা যায়,গত কয়েকদিন ধরে শাখা ছাত্রলীগের সদস্যরা এ তথ্য সংগ্রহের কার্যক্রম শুরু করেছে।

ইতিমধ্যেই হলের ২য় ও ৩য় তালার অধিকাংশ কক্ষ নিজেদের দখল রেখেছে তারা। অন্যান্য কক্ষে হল প্রশাসনের বরাদ্দের ভিত্তিতে সাধারণ ছাত্ররা থাকছে।

হল শাখা ছাত্রলীগের একটি সূত্র থেকে জানা যায়, ওই হলে ছাত্রলীগের সদস্যরা দুই গ্রুপে বিভক্ত। বড় গ্রুপের নেতৃত্ব দেন শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম সরোয়ার। গোলাম সরোয়ার বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি আবিদাল হাসানের অনুসারি। গত বছরের নভেম্বর মাসে এই গোলাম সরোয়ার চার তলার ব্লকে দশটি রুম থেকে বৈধ শিক্ষার্থীদের বের করে দিয়ে তার নেতাকর্মীদের কক্ষে তুলে দেন।

বাকি অংশের নেতৃত্বে আছে হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাহিদ হাসান শাহিন। শাহিন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন প্রিন্সের অনুসরণ করে।

হলে এই দুই গ্রুপের রয়েছে দখল করা আলাদা আলাদা কক্ষ। গ্রুপ ভারী করার জন্য নেতাকর্মীরা প্রত্যেক বছর নতুন আগত ১ম বর্ষের ছাত্রদের নিজেদের গ্রুপে তোলার জন্য তোড় জোড় শুরু করে এবং তাদের বিভিন্ন ধরণের লোভ দেখায়।

২০১৭-১৮ সেশনের ভর্তি পরিক্ষা শেষ হয়েছে। কিছুদিন পরেই নতুন করে ছাত্ররা হলে উঠবে। নিজেদের গ্রুপে বেশি করে ছাত্র তুলতে রুম দখলের এই চেষ্টা করছে বলে মনে করেন ভূক্তভোগী শিক্ষার্থীরা।

হল ছাত্রলীগ সূত্রে জানা যায়, এসব কক্ষসমূহের নিয়ন্ত্রণ নিতে সম্প্রতি হলের প্রতিটি রুমে গিয়ে একটি ফরম দেয়া হচ্ছে। যেখানে প্রত্যেকের নাম, বিভাগ মোবাইল নম্বর লিখানো হচ্ছে। শীর্ঘই এর মাধ্যমে এসব কক্ষসমূহ পলিটিক্যাললি নিয়ন্ত্রন নিবে ছাত্রলীগ। দুই গ্রুপই এ লক্ষ্যে কাজ শুরু করেছে।

হলের সাধারণ শিক্ষার্থীরা জানান, হলের ছাত্রলীগ নিয়ন্ত্রিত কক্ষ গুলোতে পলিটিক্যালি একজন বা দু’জন থাকে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। আর সাধারণ শিক্ষার্থীরা একজনের জায়গায় ৪ জন, ২ জনের জায়গায় ৬ জন করে থাকে। তারপরেও আমাদের কক্ষসমূহ নিয়ন্ত্রণ নেয়ার চেষ্টা করছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

এছাড়া হলের ২য় তলা ও ৩য় তলায় ছাত্রলীগ নিয়ন্ত্রিত পলিটিক্যাল কক্ষগুলোতে এমন নেতাকর্মীরাও আছেন যাদের ছাত্রত্ব শেষ হয়েছে অনেক আগে, এর বাইরে আছে কেন্দ্রীয় ও হল শাখার ছাত্রত্ব শেষ হওয়া সাবেক অনেক নেতা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও হল প্রাধ্যক্ষ মাকসুদ কামাল বলেন, এ অভিযোগটি আমার কাছেও এসেছে। আগামীকাল আমাদের হল প্রশাসনের মিটিং আছে তখন আমরা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব। হলের নিয়ন্ত্রণ শুধুমাত্রই হল প্রশাসনের কাছে থাকবে। অন্য কারো কাছে হলের নিয়ন্ত্রণ থাকবে না।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম সারওয়ার বলেন, রুম দখল করে কিভাবে? প্রত্যেক রুম থেকে তথ্য সংগ্রহের ব্যাপারে আমি কিছু জানি না।

বিষয়টি সম্পর্কে কথা বলার জন্য হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাহিদ হাসান শাহিনকেমোবাইলে পাওয়া যায়নি।

সূত্র: বিডিমর্নিং

creativesoftbd.com

     আজকের খবর বিডি কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

  

জরুরি সেবা ফোন নাম্বার